Ind Vs Eng News: চিপকের পঞ্চম দিনের উইকেটেও জিততে পারে ভারত, আশা ছাড়ছেন না অশ্বিন

চেন্নাই: ব্যাটসম্যানদের পক্ষে সহায়ক পিচে প্রায় ৭৩ ওভার বোলিং করাটা একেবারেই সহজ নয়। কিন্তু বোলিং করতে তাঁর এত উৎসাহ যে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে শরীরের ওপর চেপে বসা বোঝার কথা ভুলে যান। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ভারতের চলতি সিরিজের প্রথম টেস্টে অশ্বিন দুই ইনিংস মিলিয়ে নয় উইকেট নিয়েছেন। এরমধ্যে দ্বিতীয় ইনিংসে তাঁর সংগ্রহ ছয়টি উইকেট। 
অশ্বিন বলেছেন, কী হবে , কী হবে না, তা নিয়ে লোকজন বেশ আকর্ষণীয় বিশ্লেষণ করে থাকেন। কিন্তু কোনও খেলাোয়াড়ের মনে এ কথা একেবারে শেষে আসে। রোজ ৪০-৪৫ ওভার বোলিং করা এবং তারপর নেটে যাওয়ার আমার দৈনিক রুটিনের অঙ্গ। বোলিং করে আমি এত খুশি হই যে, অনেক সময় শরীর না দিলেও আমি বোলিং করে যেতে থাকি। আমি বোলিং করতে এতটাই ভালোবাসি। 

ইশান্তের মতো অশ্বিনও স্বীকার করেছেন, উইকেট পুরোপুটি পাটা এবং চলতি টেস্টে টসের গুরুত্ব ছিল বেশি। অশ্বিন বলেছেন, উইকেটে দেখে আমার মনে হয়েছিল যে, ব্যাটসম্যানদের পক্ষে ভালো হবে। তবে দ্বিতীয় দিনে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। এটা পুরোপুরি পাটা পিচ। এক্ষেত্রে টসের ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এরপরও আমার মনে হয় যে, আমরা বেশ ভালোভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছি। পঞ্চম দিনে ভালো খেললে আমরা জিতেও যেতে পারি। 

৪২০ রানের লক্ষ্য সামনে রেখে খেলতে নেমে চতুর্থ দিনের খেলা শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের রান এক উইকেটে ৩৯। ম্যাচ রোমাঞ্চকর মোড় নিতে পারে পঞ্চম দিন। চতুর্থ দিনের খেলার শেষে ক্রিজে রয়েছেন শুভমান গিল ও পূজারা। গিল ১৫ ও পূজারা ১২ রানে অপরাজিত রয়েছেন। খেলার শেষ তথা পঞ্চম দিনে ভারতকে জিততে হলে করতে হবে ৩৮১ রান। হাতে রয়েছে নয় উইকেট।

ওয়াশিংটন সুন্দর এই নিয়ে পরপর দুটি টেস্টে হাফসেঞ্চুরি করলেন। দলের স্পিন আক্রমণের সহযোগীর প্রশংসা করলেন অশ্বিন। তিনি বললেন, ওয়াশিংটন বিশেষ ব্যাটসম্যান। অশ্বিন বললেন, ও দারুণ ব্যাটসম্যান। অনেকেই টি ২০ ক্রিকেটের ভিত্তিতে বিচার করে থাকেন। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ওই ফরম্যাটে ও সাত নম্বরে ব্যাট করতে নামে। অনেকেই ওর ওই বিশেষ প্রতিভা সম্পর্কে ধারণা করতে পারবেন না যে, ও কতটা স্পেশ্যাল ব্যাটসম্যান। 

ইংল্যান্ড ভারতকে ফলো-অন করায়নি। জো রুট ব্রিগেডের এই সিদ্ধান্তে তিনি অবাক নন বলেই মন্তব্য করেছেন অশ্বিন। তিনি বলেছেন, ওদের হাতে বিকল্প ছিল। কিন্তু নিজেদের বোলারদের ফলো-অন করায়নি। বাইরে থেকে বিষয়টি ভালোভাবে বোঝা না গেলেও অনেক সময় তরতাজা বোলাররা ক্লান্ত বোলারদের তুলনায় ভালো বল করতে পারে। 

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *