India vs England: ভারত এত ভয় পাচ্ছে কেন? মোতেরার পিচ নিয়ে খোঁচা শোয়েব আখতারের

নয়াদিল্লি: নবনির্মিত নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট দু’দিনেরও কম সময়ে শেষ হয়ে যাওয়া নিয়ে ভারতকে খোঁচা দিলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন তারকা পেসার শোয়েব আখতার। তাঁর দাবি, ভারতীয় দল এমনিতেই ভাল। টেস্ট ম্যাচ জেতার জন্য ঘরের মাঠের সুবিধা নেওয়ার দরকার নেই।

একাধিক প্রাক্তন ক্রিকেটার আমদাবাদ টেস্টের পিচ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাঁদের সুরেই নিজের ইউটিউবে চ্যানেলে আপলোড করা একটি ভিডিওতে শোয়েব বলেছেন, ‘এই ধরনের উইকেটে কি টেস্ট ম্যাচ হওয়া উচিত? একেবারেই না। যে পিচে এতটাই অসমান টার্ন, ম্যাচ দু’দিনের মধ্যে শেষ হয়ে গেল, সেটা টেস্ট ম্যাচের পক্ষে একেবারেই ভাল না।’

আমদাবাদে দুই ইনিংস মিলিয়ে ইংল্যান্ডের ২০ উইকেটের মধ্যে ১৮টিই নেন ভারতের দুই স্পিনার অক্ষর পটেল ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন। একটি উইকেট নেন অপর এক স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর। একটি উইকেট নেন ভারতের অভিজ্ঞ পেসার ইশান্ত শর্মা। সে কথা উল্লেখ করেই ভারতকে খোঁচা দিয়েছেন শোয়েব। তিনি বলেছেন, ‘আমার মনে হয়েছিল ভারত এর চেয়ে অনেক বড়, ভাল দল। পিচ এমন হওয়া উচিত, যাতে কোনও দল বাড়তি সুবিধা না পায়। ন্যায্য খেলা হওয়া উচিত। আমার মনে হয়, সেক্ষেত্রেও ইংল্যান্ডকে হারাতে পারবে ভারত। ওদের ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই। ভারতের এরকম উইকেট বানানো উচিত নয়। অ্যাডিলেডে কি ভারতের পক্ষে সুবিধাজনক উইকেট তৈরি করা হয়েছিল? মেলবোর্নের উইকেট কি ভারতের সহায়ক ছিল? ভারত কী করে অস্ট্রেলিয়ায় সিরিজ জিতল? দু’দলই সমান সুবিধা পাবে এমন মাঠ, পরিবেশে জয় পেলে তবেই বলা যাবে, দেখো, আমরা ঘরের মাঠে যেমন ভাল খেলতে পারি, বিদেশেও তেমনই ভাল পারফরম্যান্স দেখাতে পারি। আশা করি চতুর্থ টেস্টে ভাল পিচ হবে। পরের টেস্ট ম্যাচের জন্য সেরা পিচ বানানো উচিত ভারতের। আমি নিশ্চিত, ভারতের সেই পিচেও জেতার ক্ষমতা আছে। ওদের ঘরের মাঠে খেলার সুবিধা নেওয়া উচিত নয়। ভারত যদি অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে সিরিজ জিততে পারে, তাহলে ঘরের মাঠেও সহজেই জিততে পারে।’

বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে ভারত-ইংল্যান্ড সিরিজের চতুর্থ টেস্ট। এই ম্যাচটিও হবে আমদাবাদেই। সিরিজে এখন ২-১ এগিয়ে ভারত। চতুর্থ টেস্ট না হারলেই বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পৌঁছে যাবে ভারত।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *